জগন্নাথপুর টাইমসবৃহস্পতিবার , ২১ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. খেলা
  3. গ্রেট ব্রিটেন
  4. ধর্ম
  5. প্রবাসীর কথা
  6. বাংলাদেশ
  7. বিনোদন
  8. বিশ্ব
  9. মতামত
  10. রাজনীতি
  11. ল এন্ড ইমিগ্রেশন
  12. লিড নিউজ
  13. শিক্ষাঙ্গন
  14. সাহিত্য
  15. সিলেট বিভাগ
 
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বাংলাদেশের অর্থনীতি : সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জসমূহ – ড. আতিউর রহমান

Jagannathpur Times BD
সেপ্টেম্বর ২১, ২০২৩ ৭:৪৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বাংলাদেশের অর্থনীতি : সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জসমূহ –

ড. আতিউর রহমান

বাংলাদেশের অর্থনীতির অসাধারণ রূপান্তরের গল্পটি আসলেই চমকপ্রদ। শুরুটা ছিল দারুণ চ্যালেঞ্জিং। মুক্তিযুদ্ধোত্তর বাংলাদেশ ছিল এক ধ্বংসস্তূপ। বলা চলে শূন্য হাতেই বাংলাদেশ তার উন্নয়ন অভিযাত্রা শুরু করেছিল। তবে বড় সম্পদ ছিল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উদ্দীপনামূলক নান্দনিক নেতৃত্ব। জাতিকে দেওয়া এই নেতৃত্বের লড়াকু মনই বাংলাদেশকে টেনে তুলে দেয় উন্নয়নের মহাসড়কে। ১৯৭২ থেকে ১৯৭৫ সময়ে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় ৯৯ ডলার থেকে ২৬০ ডলারে উন্নীত হয়। তা বেড়েছিল ১৬৩%। অথচ ১৯৭৫-১৯৭৮ সময়ে তা বেড়েছিল মাত্র ৫২%। এতেই প্রমাণিত হয় যে, আশা জাগানিয়া নেতৃত্ব কতটা গুরুত্বপূর্ণ। ২০০৯ থেকে ২০২২ সালনাগাদ মাথাপিছু আয় ৬৯৯ ডলার থেকে প্রায় চার গুণ বেড়েছিল। এ পর্বেও নেতৃত্বের গুরুত্ব দৃশ্যমান। ১৯৯১-১৯৯৫ পর্বে পাঁচ বছরের প্রবৃদ্ধির গড় অর্জন ছিল ৪.১৫%। আর ২০১৬-২০২০ পর্বে তা বেড়ে দাঁড়ায় ৭.১৪%তে। গত এক দশকে জিডিপিতে শিল্প খাতের অনুপাত বেড়েছে ২২% থেকে ৩৭%। দানা শস্যের উৎপাদন ১৯৭২ সালে ছিল ১৫ মিলিয়ন টন। ২০১০ সালে তা বেড়ে দাঁড়ায় ৫২ মিলিয়ন টনে। আর ২০২১ সালে তার পরিমাণ দাঁড়ায় ৬৩ মিলিয়ন টনে। এসবের প্রভাব দেশের সার্বিক দারিদ্র্যের হারের ওপর পড়েছে। ২০১০ সালে এর হার ছিল ৩১.৫%। এটি ২০২২ সালে কমে দাঁড়ায় ১৮.৭%। এর পাশাপাশি মানবিক উন্নয়নের সূচকগুলোর উন্নতিও ছিল চোখে পড়ার মতো। ২০০৫ সালে জীবনের গড় আয়ু ছিল ৬৫.২ বছর। তা আজ ৭৩ বছর। ২০০৫-২০২৩ পর্বে শিশুমৃত্যু হার হাজারে ৫১ থেকে কমে ২২ হয়েছে। একই ভাবে মাতৃমৃত্যু হার ওই সময়ে কমেছে লাখে ৩৭৬ থেকে ১২৩। বাংলাদেশের আর্থসামাজিক সূচকগুলোর এই অভাবনীয় উন্নয়নের পেছনে যেসব কারণ কাজ করেছে তার মধ্যে রয়েছে : তৈরি পোশাকসহ ম্যানুফ্যাকচারিং খাতের দ্রুত বিকাশ, প্রবাস আয়ের ব্যাপক বৃদ্ধি, বহুমুখী কৃষির অসামান্য রূপান্তর ও প্রবৃদ্ধি, ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহারনির্ভর সুবিস্তৃত আর্থিক অন্তর্ভুক্তি, আনুষ্ঠানিক খাতে নারীর ব্যাপক অংশগ্রহণ (২০০৯-২০২৩ পর্বে ৩০% থেকে ৩৮%) এবং শতভাগ পরিবারে বিদ্যুৎ প্রাপ্তি।

এ সময়টায় অর্থনীতি ও রাজনীতিতে বড় কোনো ভুল কৌশল গ্রহণ করেনি বাংলাদেশ। বরং অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা এড়িয়ে এগিয়ে গেছে বাংলাদেশ। তাই এই চোখ জুড়ানো সাফল্য। তবে হালে ম্যাক্রো অর্থনীতিতে বেশকিছু অস্থিতিশীলতা দেখা দিয়েছে। চমৎকারভাবে কভিড সংকট মোকাবিলা সত্ত্বেও ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে বাংলাদেশের বহিরর্থনীতি বেশ খানিকটা চাপের মুখে পড়েছে। ব্যাপক আমদানি মূল্য বেড়ে যাওয়া এবং রপ্তানি ও প্রবাস আয় সেভাবে না বাড়ায় লেনদেনের ভারসাম্যে বড় ধরনের ধাক্কা লেগেছে। রিজার্ভকে ক্ষয় হতে দিয়ে এ পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে বলা যাবে না। বরং এর ফলে টাকার দাম প্রায় ৩০ শতাংশ কমে গেছে। এর প্রভাবে আমদানি করা জিনিসপত্রের দাম বেশ বেড়েছে। আর সে কারণেই মূল্যস্ফীতি বাগে আনা কষ্টকর হয়ে যাচ্ছে। মুদ্রানীতি ও রাজস্ব নীতিকে আরও সংকোচনমূলক করা এবং দুইয়ের মাঝে আরও সমন্বয় বাড়ানোর অপরিহার্যতার কোনো বিকল্প নেই বলে মনে হয়। নীতি সুদের হার আরও বাড়ানো এবং সরকারি খরচের দক্ষতা বাড়ানোও এ সময়ের বড় দাবি। পাশাপাশি টাকা-ডলারের বিনিময় হার আরও নমনীয় ও বাজারভিত্তিক করে বৈদেশিক মুদ্রার বাজারে স্পেক্লুশন ও অনিশ্চয়তা দূর করা জরুরি হয়ে পড়েছে। সবার জন্য একটাই বিনিময় হারের প্রস্তাবটিও দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি রাখে। আগামী ছয় মাস আর কোনো গাড়ি আমদানি নয় এমন নীতির পাশাপাশি বিলাসপণ্যের আমদানি অনুৎসাহিত করা এবং প্রয়োজনীয় পণ্য, সেবা, কাঁচামাল, যন্ত্রপাতি আমদানির সুযোগ বৃদ্ধি করা গেলে মনে হয় পরিস্থিতির উন্নতি হবে। প্রবাস আয় বাড়ানোর জন্য ডলারের দাম আরেকটু বাড়তে দেওয়া, সেবা খাতসহ প্রয়োজনীয় পণ্য আমদানির জন্য ছোটখাটো আমদানিকারকদের ছায়াবাজারে ডলারের চাহিদা থাকায় তা মেটানোর ব্যবস্থা করার মতো দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি মনে হয়ে। একই সঙ্গে সামাজিক সুরক্ষা আরও বাড়িয়ে মূল্যস্ফীতির ধকল সামলানোর চেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে।

বাংলাদেশ এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের পর পশ্চিমের বাজারে আরএমজিসহ পণ্যের প্রবেশ সীমিত হতে পারে, মেধাস্বত্ব আইনের প্রয়োগের ফলে ওষুধ ও সফ্টওয়্যার শিল্পের ওপর যে প্রভাব পড়বে, সে বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে। আন্তর্জাতিক আর্থিক ও উন্নয়ন সংস্থা থেকে ঋণের সুদহারও বেশ খানিকটা বাড়বে, সে কথাটিও মনে রাখতে হবে।

 

জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার জন্য বাজেট ও অর্থায়নের দিকটি অগ্রাধিকার দিতে হবে। ডিজেল দিয়ে সেচ পরিচালনার বদলে সৌরশক্তির ব্যবহারের জন্য উপযুক্ত রাজস্ব প্রণোদনা ও আর্থিক সংস্থান করার প্রয়োজন রয়েছে। এ কথা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও কিছুদিন আগে একনেক সভায় বলেছেন।

তবে বাংলাদেশের এ অগ্রযাত্রা টেকসই করতে হলে আঞ্চলিক পর্যায়ে মাল্টিমোডাল সংযোগমূলক অবকাঠামো গড়ে তোলার গতি আরও ত্বরান্বিত করা, অবকাঠামো উন্নয়নে ব্যক্তি খাতের অংশগ্রহণকে উৎসাহিত করা এবং বিশেষ শিল্পাঞ্চলগুলোর ব্যাকওয়ার্ড ও ফরওয়ার্ড লিঙ্কেজ নিশ্চিত করাসহ এসবের বাস্তবায়ন দ্রুত সম্পন্ন করার মতো নীতি-উদ্যোগের কোনো বিকল্প নেই।

এ কথা মানতেই হবে যে, আগামী দিনের অর্থনীতি, সমাজ ও রাজনীতি হবে পুরোপুরি ডিজিটাল। বাণিজ্য হবে ই-কমার্সভিত্তিক।

এসএমই সম্পর্কিত ইনোভেশন ও উন্নয়ন সামষ্টিক অর্থনীতির ভিত্তি আরও মজবুত করবে, ব্যক্তি খাত অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধির দৌড়ে এগিয়ে থাকবে, শিল্পের উন্নতির জন্য শিক্ষাকে আরও দক্ষ ও প্রযুক্তিমুখী করা প্রয়োজন, কৃষির আধুনিকায়ন ও যন্ত্রায়ন, আঞ্চলিক বাণিজ্যের হাব হবে বাংলাদেশ এবং উপযুক্ত সংস্কারের মাধ্যমে রাজস্ব বাড়ানোর মতো দরকারি নীতি-উদ্যোগগুলোর দিকে বিশেষ নজর দিতে পারলে বাংলাদেশের উন্নয়ন সম্ভাবনা আরও জোরদার করা সম্ভব। রপ্তানি শিল্পের পাশাপাশি অভ্যন্তরীণ ভোগের চাহিদা মেটানোর জন্য দেশের ভিতরে আমদানি-বিকল্প যেসব শিল্প গড়ে উঠেছে, সেসবের দিকেও প্রয়োজনীয় নীতিসহায়তা অব্যাহত রাখা চাই।

তবে আমরা এখন গ্লোবালাইজড পৃথিবীতে বাস করি। বর্তমান ভূরাজনৈতিক বাস্তবতায় বাংলাদেশ সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব এবং কারও সঙ্গে শত্রুতা নয় আদলের যে নীতি গ্রহণ করে এগিয়ে যাচ্ছে, তা অব্যাহত রাখাটাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে। একই সঙ্গে বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সুফল সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেওয়ার এবং শান্তির অন্বেষার যে আহ্বান তাঁর জাতিসংঘে ঐতিহাসিক ভাষণে রেখেছিলেন তার রেশ কিন্তু এখনো রয়ে গেছে। নেতৃত্বের সেই পরম্পরার অংশ হিসেবেই মাত্র দুই দিন আগে আমাদের প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘের এক সভায় পাঁচ দফা উপস্থাপন করেছেন। বঙ্গবন্ধুর মতোই তিনি বিশ্ব অর্থনীতির স্থাপত্য সংস্কার করে দক্ষিণের দেশগুলোর সাধারণ মানুষের কল্যাণের উদ্দেশ্যে আইএমএফের এসডিআর ও অন্যান্য অর্থায়ন প্রক্রিয়া আরও জনবান্ধব, দুর্যোগ মোকাবিলা ও জলবায়ুবান্ধব করার ওপর জোর দিয়েছেন। একই সঙ্গে তিনি সমকালীন অর্থনীতির চ্যালেঞ্জগুলো স্বীকার করেছেন। দক্ষিণের দেশগুলোর চ্যালেঞ্জগুলো একযোগে মোকাবিলার ওপর জোর দিয়েছেন। তা ছাড়া বাংলাদেশের উন্নয়ন অর্জনকে এক নয়া উচ্চতায় নেওয়ার অঙ্গীকারও করেছেন।

স্বদেশে ও বিদেশে উন্নত বাংলাদেশ নির্মাণের স্বপ্নগুলো নিরন্তর ছড়িয়ে দেওয়ার এসব উদ্যোগ অব্যাহত থাক। কেননা রবীন্দ্রনাথের ভাষায়, আশা করবার অধিকারই আমাদের চলার পথে বড় পাথেয় হতে পারে। স্বপ্নের ক্ষেত্র তাই আরও প্রসারিত হোক।

লেখক : ড. আতিউর রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি।