জগন্নাথপুর টাইমসশুক্রবার , ৭ এপ্রিল ২০২৩, ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. খেলা
  3. গ্রেট ব্রিটেন
  4. ধর্ম
  5. প্রবাসীর কথা
  6. বাংলাদেশ
  7. বিনোদন
  8. বিশ্ব
  9. মতামত
  10. রাজনীতি
  11. ল এন্ড ইমিগ্রেশন
  12. লিড নিউজ
  13. শিক্ষাঙ্গন
  14. সাহিত্য
  15. সিলেট বিভাগ
 
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গণতন্ত্র চর্চার প্রাণকেন্দ্র জাতীয় সংসদ- রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ

Jagannathpur Times BD
এপ্রিল ৭, ২০২৩ ৩:৫৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নিজস্ব প্রতিবেদক :

গণতন্ত্র চর্চার প্রাণকেন্দ্র জাতীয় সংসদ । গণতন্ত্রকে বিপন্ন করে তোলে এমন যে কোনো অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

শুক্রবার (৭ এপ্রিল ২০২৩)  জাতীয় সংসদের সুবর্ণ জয়ন্তী (৫০ বছরপূর্তি) উপলক্ষে বিশেষ অধিবেশনে স্মারক বক্তৃতায় রাষ্ট্রপতি এসব কথা বলেন। এ সময় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন।

এসময় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, গণতন্ত্র আমদানি বা রপ্তানিযোগ্য কোনো পণ্য বা সেবা নয়। মনে চাইলো কোনো দেশ থেকে পরিমাণমতো গণতন্ত্র আমদানি বা রপ্তানি করলাম, বিষয়টি এমন নয়। গণতন্ত্র বিকশিত ও শক্তিশালী হয় চর্চার মধ্য দিয়ে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালির অধিকার আদায়ের প্রতিটি আন্দোলন ও সংগ্রামে এর উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত রেখে গেছেন। ১৯৭২ সাল থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত সংসদের কার্যবাহে সংসদ নেতা বঙ্গবন্ধুর বক্তব্যগুলো পড়লে বুঝা যায় সংসদকে কিভাবে প্রাণবন্ত ও কার্যকর করতে হয়।

এরআগে রাষ্ট্রপতি তাঁর নির্ধারিত আসন গ্রহণের সময় বিউগলে সুর বেজে ওঠে। এরপর জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। এ সময় সংসদে ভিআইপি গ্যালারিতে বসে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের ভাষণ শোনেন নবনির্বাচিত রাষ্ট্রপতি মো. শাহাবুদ্দিন। অধিবেশনে উপস্থিত ছিলেন সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিরোধী দলের নেতা রওশন এরশাদ।

এছাড়া আমন্ত্রিত হয়ে ভিআইপি গ্যালারিতে উপস্থিত ছিলেন প্রধান বিচারপতি, তিন বাহিনীর প্রধান ও বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও কূটনীতিকরা। ১৯৭৩ সালের ৭ এপ্রিল বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের যাত্রা শুরু হয়। এ বছর সংসদের ৫০ বছর পূর্ণ হলো। জাতীয় সংসদের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে এ বিশেষ অধিবেশন আহ্বান করেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। এই অধিবেশনের ভাষণই সংসদে রাষ্ট্রপতি হিসেবে তার শেষ ভাষণ।

রাষ্ট্রপতি বলেন, জাতির বীর, সাহসী সূর্যসন্তানেরা লাখো প্রাণের বিনিময়ে আমাদের একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশ উপহার দিয়ে গেছেন। আমাদের দায়িত্ব এই দেশ ও জাতির অগ্রযাত্রাকে বেগবান করা।

তিনি বলেন, গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের অন্যতম প্রধান স্তম্ভ এই মহান জাতীয় সংসদে দাঁড়িয়ে আমি আজ দলমত নির্বিশেষে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি— আসুন সবার সম্মিলিত প্রয়াসে প্রিয় মাতৃভূমি থেকে সংঘাত—সংঘর্ষ এবং যে কোনো উগ্রবাদ ও ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড থেকে দূরে থেকে কল্যাণমুখী রাষ্ট্র গঠনে শামিল হই। গণতন্ত্রকে বিপন্ন করে তোলে এমন কোনো অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে রুখে দাঁড়াতে হবে।

রাষ্ট্রপতি আরও বলেন,  সুশাসন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনায় সরকারের সকল বিভাগের জবাবদিহিতার ক্ষেত্রে আদর্শ স্থাপনের গুরুদায়িত্ব বর্তায় এ মহান সংসদের সংসদ সদস্যদের ওপর। কেবল গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিতরাই সংসদে জনগণের প্রতিনিধিত্ব এবং জনগণের নিকট জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে পারে। এ বিষয়ে সরকারি ও বিরোধী উভয়পক্ষের সংসদ সদস্যগণই জাতির নিকট দায়বদ্ধ। এই উপলব্ধি থেকে হিংসা-বিদ্বেষ, ব্যক্তিগত এবং দলীয় স্বার্থের ঊর্ধ্বে উঠে গণতন্ত্রকে সুপ্রতিষ্ঠিত করার প্রয়াসে আমি এ মহান সংসদে সংসদ সদস্যদের গঠনমূলক, কার্যকর ও সক্রিয় অংশগ্রহণের আহ্বান জানাচ্ছি।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি।