জগন্নাথপুর টাইমসবুধবার , ২৯ মার্চ ২০২৩, ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. খেলা
  3. গ্রেট ব্রিটেন
  4. ধর্ম
  5. প্রবাসীর কথা
  6. বাংলাদেশ
  7. বিনোদন
  8. বিশ্ব
  9. মতামত
  10. রাজনীতি
  11. ল এন্ড ইমিগ্রেশন
  12. লিড নিউজ
  13. শিক্ষাঙ্গন
  14. সাহিত্য
  15. সিলেট বিভাগ
 
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দেশের উন্নয়ন সব মানুষের কাছে পৌঁছায় না -ড. কাজী খলীকুজ্জমান

Jagannathpur Times BD
মার্চ ২৯, ২০২৩ ১০:৩৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নিউজ ডেস্কঃ  দেশে উন্নয়ন হচ্ছে, কিন্তু সব মানুষের কাছে পৌঁছায় না। মুষ্টিমেয় মানুষের কাছে সম্পদ থেকে যাচ্ছে। তারা যে পরিমাণ রাজস্ব দেয়ার কথা, তা দেয় না, বিদেশে পাচার করছে। কর-অভ্যন্তরীণ মোট উৎপাদনে অনুপাত সর্বনিম্ন। এর ফলে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিসহ উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে যে অর্থ দরকার, সেটা সরকারের কাছে থাকছে না।

বুধবার (২৯ মার্চ) সকালে রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ওয়েব ফাউন্ডেশন ও এশিয়া ফাউন্ডশনের যৌথ আয়োজনে ‘সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির নীতিগত সংস্কার সম্পর্কিত পলিসি কনফারেন্স’ শীর্ষক সেমিনারে সভাপতির বক্তব্যে পল্লী-কর্মসহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) চেয়ারম্যান ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি রাশেদ খান মেনন। আলোচক ছিলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক শারমিন্দ নিলোর্মী, বিআইআইএসএস গবেষণা পরিচালক ড. মাহফুজ কবীর, ওয়েব ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক মহসিন আলী। মূল উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. আসিফ শাহান। স্বাগত বক্তব্য দেন ওয়েভ ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক কানিজ ফাতেমা।

কাজী খলীকুজ্জমান বলেন, কিছু মানুষ চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের কথা বলছে। এখনো দ্বিতীয় শিল্প বিপ্লবই পুরোপুরি সমাপ্ত হয়নি। কিছু মানুষের কাছে সেই পরিমাণ সম্পদ আছে, তারা চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের কথা বলছে, বাকিদের ভেড়া বানিয়ে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব করে, অর্থ লুট করে পাচার করতে চায়।

রাশেদ খান মেনন বলেন, প্রথমে সমস্যা হয়েছিল, সমস্যা থেকে উত্তরণে ফিঙ্গার প্রিন্ট (আঙুলের ছাপ) নেয়া হয়েছিল। কিন্তু এবার নির্দিষ্ট মোবাইল ফাইনান্সিং প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে সহায়তার খবর ভুক্তভোগীর কাছে পৌঁছানোর আগেই রাতের আঁধারে টাকা আউট হয়ে যায়। সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতে সরকারের ইচ্ছা আছে। এটা সঠিকভাবে ভুক্তভোগীর কাছে পৌঁছাতে ডেটাবেজ সমৃদ্ধ করতে জোর দেন এই রাজনীতিক।

তিনি বলেন, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতে বরাদ্দ পর্যাপ্ত নয়। এই খাতে বরাদ্দের ৪৫ শতাংশ চলে যায় সরকারি কর্মচারীদের পেনশন বাবদ। অতি দরিদ্র, বয়স্ক জনগোষ্ঠী, দুঃস্থ মায়ের জন্য যেসব কর্মসূচি রয়েছে, সেগুলো স্বচ্ছতার অভাবে ভুক্তভোগীর কাছে শতভাগ পৌঁছায় না।

শারমিন্দ নিলোর্মী বলেন, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় যে সহায়তা দেয়া হয়, সেটাও শতভাগ দরিদ্র মানুষের কাছে পৌঁছায় না, তারা পাচ্ছে ৫৫ শতাংশ। বাকি ৪৫ শতাংশ পাচ্ছে অ-দরিদ্র মানুষ। এ অবস্থায় সরকারের সহায়তা বৃদ্ধির পাশাপাশি সহায়তা কর্মসূচি স্বচ্ছ করতে হবে।

মাহফুজ কবীর বলেন, সরকারের যথেষ্ট সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি আছে। কিন্তু অনেক এলাকা আছে তারা জানেই না। অথচ এসব এলাকার মানুষ চরম দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাস করছে। আয় রোজগার নেই। কিন্তু না জানার কারণে এসব মানুষ সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির ধারে কাছে আসতে পারছে না। এসব মানুষের জন্য সরকারের বরাদ্দ থাকলেও তা তারা পাচ্ছে না। মানবেতর জীবনযাপন করছে। এসব মানুষকে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় আনতে হবে।

মহসিন আলী বলেন, করোনা মহামারি সামাজিক নিরাপত্তাহীনতা বাড়িয়েছে। দারিদ্র্য বেড়েছ। মানুষের সে সমস্যাগুলো এখনো রয়েছে। করোনা পরবর্তী সমস্যাগুলো প্রকট হয়েছে। মানুষ ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি।

আসিফ সাহান বলেন, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির নগদ সহায়তা মোবাইল ফাইনান্সিংয়ের মাধ্যমে দেয়া হয়েছে। যাদের কাছে এ সহায়তা দেয়া হচ্ছে, তাদের ৭০ ভাগ মানুষের মোবাইল ফাইনান্সিংয়ের অ্যাকাউন্ট রয়েছে।

তিনি আরো বলেন, মোবাইল ফাইনান্সিং ব্যবহার করে সহায়তা দেয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে, এটা ভালো। তবে এ জন্য মানুষের যে জ্ঞান থাকার কথা তাদের তা নেই। এর ফলে যেটা হয়েছে সেটা হলো, মানুষ মনে করছে বিষয়টি জটিল। আরেকজনের ওপর নির্ভর করছে। এতে ঝামেলা তৈরি হয়েছে। অনলাইন কার্যক্রম ধরে রেখে ডিজিটাল জ্ঞান দেওয়ার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিতে হবে।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি।